NASA ২০১৮ সালের ১২ই আগস্ট সূর্যকে ছোঁয়ার জন্য মহাকাশযান পাঠায়। এই অভিযানের নাম ছিল ‘Touch The Sun’

এই অভিযানে যে মহাকাশযান ব্যবহার করা হয়েছে, তার নাম ‘পার্কার’। পঞ্চাশের দশকের বিখ্যাত পদার্থবিজ্ঞানী ইউজেনি নিউম্যান পার্কার এর নাম অনুসারে এটির নামকরণ করা হয়েছে।

 

সূর্যের করোনা অংশ’টি অন্য অংশ থেকে বেশি উষ্ণ। এই উষ্ণতার রহস্য জানার জন্যই NASA-র এই অভিনব পদক্ষেপ।

NASA পার্কার’কে মহাকাশে পাঠাবার পরে মাত্র ১৬১ দিনে সূর্যের প্রথম কক্ষপথের আবর্তন শেষ করে পার্কার

 

NASA জানিয়েছে, আগামী ঠা এপ্রিল সূর্যের খুব কাছাকাছি পৌঁছে যাবে পার্কার। গত লা জানুয়ারি থেকে পার্কার তার কাজ শুরু করেছে, ইতিমধ্যে সূর্য সম্পর্কে NASA-র কাছে ১৭ GB এরও বেশি তথ্য পাঠিয়েছে। আগামী বছর ধরে পার্কার মহাকাশে কাজ করবে।

 

NASAর সূর্য’কে ছোঁয়ার অভিযান অবশ্য নতুন নয়। এর আগে ১৯৭৬ সালে ‘হিলিয়াস-২’ নামে মহাকাশযান NASA পাঠিয়েছিল। মহাকাশযান’টি কোটি ৭০ লক্ষ মাইল দূর থেকে সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে।

পার্কার এবার কোটি ৫০ লক্ষ মাইল দূর থেকে সূর্যের প্রদক্ষিণ করবে । উল্লেখ করা যেতে পারে, পৃথিবী ও সূর্যের মাঝে মাঝে দূরত্ব কোটি ৩০ লক্ষ মাইল। সূর্যের এত কাছাকাছি যাওয়ার পরে পার্কারের বাইরে তাপমাত্রা দাঁড়াবে ২৫০০ ডিগ্রী ফারেনহাইট। এই বিপুল তাপমাত্রাতেও মহাকাশযান’টি কে সচল রাখার জন্য অনেক উন্নত ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

 

সূর্যের মধ্যে কি রহস্য আছে তা উন্মেচন করার জন্য NASAর এই অভিযান অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। বিজ্ঞানীদের মতে সূর্য সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য বিশ্লেষণ করলে হয়তো সৌরজগৎ সম্পর্কে অনেক ধারণা বদলে যাবে। হয়তো সৌরমন্ডল সৃষ্টির রহস্য তখন জানা যাবে।

Atanu Chakraborty is a content and news writer at BongDunia. He has completed his Bachelor Degree on Mass Communication from Rabindra Bharati University. He has worked with mainstream media, in the capacity of a reporter and copywriter.

Leave A Reply